Featured Post Today
print this page
Latest Post

BDIX server Free working server list



প্রথমেই জানা যাক যে BDIX কী?

BDIX  কি ?

 

BDIX  এর পূরনরূপ হলো  ‘Bangladesh Internet Services Exchange.’ এর মাধ্যমে আপনি সহজেই অনেক বড় সাইজের এইচডি মুভি বা ফাইলও সুপার স্পিডে ডাউনলোড করতে পারবেন। এটি মূলত এক ধরনের ভার্চুয়াল নেটওয়ার্ক তৈরি করে যার মাধ্যমে আপনি খুব সহজেই তাদের সার্ভার থেকে যে কোন ফাইল অনেক কম সময় অনেক দ্রুত গতিতে ডাউনলোড করতে পারবেন। আরো ভালোভাবে উদাহরণের মাধ্যমে বলতে গেলে,ধরুন আপনি ডাউনলোড করার সময় সাধারণ সময়ে ১৫০-২০০ কেবিপিএস স্পিড পান; কিন্তু BDIX Server এর সাইট থেকে ডাউনলোডের সময় স্পিড পাবেন আরো অনেক বেশি! এ স্পিড ১ থেকে ২০ এম্বিপিএস পর্যন্তও হতে পারে! তবে হ্যা,এজন্য অবশ্যই আপনার ISP এর BDIX Connectivity থাকতে হবে।


 BDIX সার্ভার লিস্টঃ


 মুভি পাওয়ার জন্য
Natural BD

Dhaka Movie

FTP BD Com

FTP BD Net

Movie Haat

Time Pass bd

BDSpeed

Seeraj Online











Valobashi Okarone By Imran feat Minar & Nancy Lyrics

                                                            Valobashi Okarone Lyrics
Singer : Minar & Nancy
Lyric : Snahashish Ghosh
Tune & Music : Imran
Album : Nancy With Stars
Label : Cd Choice
.
নিজের চেয়েও অনেক বেশি 
তোমাকে যে ভালোবাসি
ভালোবেসে যাবো এভাবেই
যদি প্রশ্ন কর আমায় 
ভালোবাসি কেন তোমায় বলবো এর উত্তর
জানা নেই
ভালবাসতে লাগেনা কোন কারণ
হটাৎ করে ভালোবেসে ফেলে এই মন
এ জীবনে তুমি আমার সেই জন
অকারনে যাকে ভালোবাসে মন
এ জীবনে তুমি আমার সেই জন
অকারনে যাকে ভালোবাসে মন


ভালোলাগে যখন তুমি অনেক ভাল থাকো
মায়াবী ঐ মুখে এক চিলতে হাসি রাখো
এর চেয়ে সুখের কিছু নেই আমার কাছে
এর মাঝে বেঁচে থাকার অর্থ যে আছে
ভালবাসতে লাগেনা কোন কারণ
হটাত করে ভালোবেসে ফেলে এই মন
এ জীবনে তুমি আমার সেই জন
অকারনে যাকে ভালোবাসে মন (x2)
ভালোবেসে দেওয়া নামে আমায় ডাকো যখন
পরিপূর্ণ মনে হয় তখন এ জীবন
এর চেয়ে সুখের কিছু নেই আমার কাছে
এর মাঝে বেঁচে থাকার অর্থ যে আছে
ভালবাসতে লাগেনা কোন কারণ
হটাত করে ভালোবেসে ফেলে এই মন
এ জীবনে তুমি আমার সেই জন
অকারনে যাকে ভালোবাসে মন (x2) 
.
.
Tags:- Minar New Song
Minar Rahman song
Hotat kore Valobeshe fele, Nancy New song ,
Minar Song,
Minar  Song lyrics, 
 

Love Story Of Jumman & Sabila

তোকে শৈশবে ক্লাস রুমে দেখেছিলাম প্রথম, পাগলী একটা মেয়ে পাগলামী করছিলি সারাক্ষণ।।কেমন যেন ভাল লেগে গেল।।তখন বুঝিনি অনুভূতি কি।।তারপর তোর সাথে কেটে গেল একটি বছর ।ঐ একটি বছরে কত পাগলামো ।। একসাথে ক্লাস, দুপুরে খাবার, ক্লাসে দুষ্টোমি , একসাথে কোটবাড়ি পিকনিকে যাওয়া...আরও কত কি।।ঐবছরের শেষ,তারপর আমার সাথে আর কথা হয়নি তোর ।। পরের বছর গুন্ডি রুপে তোর গুরুপ নিয়ে একদিন বাসায় এসে ঝেড়ে গিয়েছিলি আমাকে ।। ঐ শেষ দেখা আমাদের ।।
Love Story
কৈশরে ঘুম ভেঙ্গে যেত মাঝরাতে তোকে স্বপ্নে দেখে।। সারাদিন ভাবতাম কেনো এমন হচ্ছে। ধিরে ধিরে স্বপ্নগুলো ভাল লাগতে শুরু হলো।। ঠিক করলাম এবার তোকে খুঁজে বের করতেই হবে। পুরনো সব জায়গায় খুঁজছি তোকে পাইনি।। তারপর কুমিল্লা সবকটা গ্লার্স স্কুলের সামনে আড্ডার নামে তোকে খুঁজা শুরু হয়ে গেল।। একটা সময় কোনভাবে জানতে পরলাম, মর্ডানে পড়ে শ্যামা নামের একটা মেয়ে ।। নামটা একটু ভিন্ন রকম হওয়াতেই হয়ত খুব তাড়াতাড়ি মাত্র পাঁচটা বছব পর তোকে খুঁজে পাওয়ার একটা আসার আলো দেখতে পেলাম।। 
তোর ক্লাসের তমা মেয়েটাকে দিয়ে ফোন নাম্বার পাঠিয়েছিলাম , তাই ফোনটা হাতেই থাকতো সারাক্ষণ। কিন্তু কল আর আসেনি কোন দিন ফোনে।তারপর বন্ধু জনিকে দিয়ে মর্ডান স্কুলের সবকটি ব্যান্সে সাইন পেন দিয়ে লিখিয়েছিলাম "শ্যামা তুমি কোথায়..আমি জুম্মান তোমাকে খুঁজে বেড়াচ্ছি,এই নাম্বারে যোগাযোগ কর।" এসব করার পরও কল আসেনি আমার ফোনে।। আম্মুকে সাথে নিয়ে খুঁজে বেড়িয়েছি তোকে শপিংমলে ।বন্ধুদের সাথে খুঁজে বেড়িয়েছি তোকে কোচিং সেন্টারে সেন্টারে।
সুমন স্যারের বাসার নিচে । দূর থেকে দেখেছিলামও একবার নীল জামা পড়া মানবীকে।। ঐদিনের চাহনিটা আজও চোখে ভাসে । রাঙ্গা চোখে একবার তাকিয়ে চলে গিয়েছিলে।। ঐদিন ডাকা হলোনা আর সাহস করে ।। উল্টো দিকে চুল আঁচড়িয়ে ব্র্যান্ডের শার্ট গায়ে দেবার পরেও দৃষ্টি আকর্ষণ করতে পারিনি তোর।। তখন তোকে আমার রানী এলিজাবেথ মনে হয়েছিল।।
টাওন হলে জিপিএ ৫ পাওয়া শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে আসবি ভেবে দুপুর ১২ টার পোগ্রামে আমি সকাল ৯ টা থেকেই অপেক্ষা করছিল। দুপুর ৩ টার পর তোকে না পেয়ে বাসায় ফিরে যাই। পরে শুনলাম তুই পোগ্রামের শেষ সময়ে এসেছিলি।। আর দেখা হলোনা আমাদের।।
শুনেছিলাম ঢাকায় একটা কলেজে ভর্তি হয়েছিলি।। তাই তোকে খুঁজতে , না বলে বাড়ি থেকে পালিয়ে অনেকবার ঢাকা যাওয়া ।।
তোকে খুজতে ঢাকা যাচ্ছিলাম ট্রেনে।। চা খেতে খেতে, ট্রেনের ম্যাগাজিনে কল্পনা করেছিলাম স্টেশনে তুই দাড়িয়ে আছিস আমার অপেক্ষায়।।
ফিরতি ট্রেনে তোকে সেডনেস গানের হেডফোনে খুজেছিলাম।
রোজ রাতে অঞ্জনের লিরিকে, একস্টিক গানে খুঁজে পেতাম তোকে।।
ফেইসবোক আসলো । ২০০৯ সালে একাউন্ট খোলা তোকে খুঁজার উদেশ্যে । শ্যামা নামের মেয়েদের ফেন্ডরিকুয়েস্ট পাঠানো শুরু। কারো সাথে মিলছে শ্যামাকে । হঠাৎ ২০১১ প্রথম দিকে শ্যামা নামে একটি মেয়েকে এফবি তে পেলাম , কেমন যেনো খুব পরিচিত , আপন আপন লাগছে।। প্রফাইল পিকটা আম্মুকে দেখলাম ।আম্মু বল্ললো এটাই শ্যামা। ফেন্ড রিকুয়েস্ট পাঠালাম।। যখন তোকে ফ্রন্ড রিকুয়েস্ট পাঠালাম তখন আমার আইডি তে শ্যামা নামের ৭৬৫ টা মেয়ে এড ছিল।। ফ্রন্ড রিকুয়েস্ট এক্সেপ্ট করিসনি তুই।। আমি ভাবলাম আমি ভার্সিটির জন্য ঢাকায় ভর্তি হব , তুই ঢাকা আসিস বলে।।২০১১সাল ঢাকা থাকা শুরু । ভার্সিটির নতুন ছাত্র।। ২০১১ নভেম্বের ১৭ তারিখ ফ্রেন্ড রিকুয়েস্ট এক্সেপ্ট করলি ।। সাথে সাথে এসএমএস দিলি তুই "তুমিই কি আমার স্কুল ফ্রেন্ড জুম্মান?"আমি খুব খুঁশি হলাম তুই আমাকে এভাবে মনে রেখেছিস বলে।। আমার নাম্বারটা তুই চাইলি তারপর ঐদিনই আমাদের কথা হলো প্রায় ১০ বছব পরে।। তখনকার আমার অনুভূতিটা আমি বলে বুঝাতে পারবোনা।। কথা বলে জানতে পারলাম এতদিন এফবি তে ডোকা হয়নি আজই লগইন করে প্রথমেই আমার সাথে কথা।।
২০১২ জানুয়ারির ১০ । ১০ বছর পর আমাদের প্রথম দেখা।। সেদিন আমি সহ্যের বাইরে এক মানবী দেখেছিলাম।।
তারপর রোজ সারাদিন কথা বলা প্রায়ই দেখা করা। লাল লিপিস্টিকে দেখেছি তোকে,নীল লিপিস্টিকে দেখেছি তোকে, অরেন্জ লিপিস্টিকে দেখেছি তোকে, লিপিস্টিক ছাড়া দেখেছি তোকে।।
তুই কি জানিস!তোকে সাজলে ভাল লাগে আবার না সাজলে তোকে অসাধারন লাগে।।
তোকে খুব সুন্দর লাগে আযানের সময় মাথায় ওড়না দিলে।
তোকে একটা একটা কথা বলতে ভাল লাগে,অনেক কথা একটা করতে ভাল লাগে।। তোকে কাঁদবোনা ভেবে কেঁদে ফেললে ভাল লাগে।।
২০১২ মে ৭ নতুন করে প্রেম শুরু।। তোকে পেয়ে একটা ব্যাপার বোঝতে পারি খুব ভাল ভাবে যে "ভালবাসলেই হয়না, ভালবেসে যেতে হয়। তাহলেই ভালবাসা পাওয়া যায় ।" 
আমি ক্ষণে ক্ষেণে নতুন করে তোর প্রেমে পরি ।।আজও পরি।। এভাবে সময় চলতে লাগলো।।
সময়ে যেতে যেতে এভাবে যে ছয়টি বছর কেটে যাবে ভেবে দেখিনি কখনও।।
২০১৬ সেপ্টেম্বর ১৬।। এই দিনে এভাবে তোকে আপন করে বউ হিসেবে পাবো আগে ভাবিনি।।
আল্লাহর কাছে এদিনে হাজারও শুকরিয়া।।
জীবনের বাকি দিনগুলো যেনো আমাদের ভাল কাটে শুধু এটুকু চাওয়া আল্লাহর কাছে।।
শেষে শুধু এটুকু বলি ,"তোকে নালিশ করব , শাসন করব।। মুড়ি চানাচুর মেখে দু'জন মুভি দেখব। তোকে বৃদ্ধ বয়সে আকাশ দেখাব।। প্রেরেসক্রিপশন দেখে ওষুধ খাওয়াব। বৃদ্ধ বয়সে গান শোনাব তোকে তোর পছন্দের এ্যালবাম থেকে।।।

Tratisonal Bengali food খাসির নবাবী বিরিয়ানি

খাসির নবাবী বিরিয়ানি
যা যা লাগবে ঃ মাংসের জন্য
- মাটন ১ কেজি বড় বড় টুকরো করা
- বিরিয়ানি মশলা ১/২ প্যাকেট 
- সাদা গোলমরিচ গুড়া ১/২ চা চামচ 
- আলু বুখারা ৫-৬ টি 
- জয়ফল-জয়ত্রি গুড়া ১/২ চা চামচ
- লবন স্বাদ মত
- টক দই ১ কাপ
- টমেটো সস ১/২ কাপ 
- কেওরা জল ২ চা চামচ
- তেল পরিমান মত
- আদা বাটা ১ টেবিল চামচ
- রসুন বাটা ১/২ টেবিল চামচ
- কাঠ বাদাম বাটা - ১ টে চা
- কাজুবাদাম বাটা - ১ টে চা 
- কাঁচা মরিচ ৭/৮ টা 
- ঘি ১/৪ কাপ 
- পিয়াজ বেরেস্তা ১ কাপ 
- জর্দার রং সামান্য

একটি পাত্রে মাংস , টক দই , টমেটো সস , ,জয়ফল জয়ত্রী,আদা-রশুন বাটা ,বাদাম বাটা, পরিমাণ মত লবণ ,কেওড়া জল , ঘি , সামান্য জর্দার রং , পরিমাণ মত তেল এবং অর্ধেক পিয়াজ বেরেস্তা দিয়ে মাখিয়ে ৩-৪ ঘণ্টা মেরিনেট করতে হবে। মাংস মেরিনেট হয়ে গেলে প্রয়োজন মত পানি দিয়ে রান্না করে নিতে হবে । রান্না শেষে আলু বুখারা দিয়ে মাখা মাখা করে নামিয়ে রাখতে হবে ।
পোলাও এর জন্য ঃ
- বাসমতি চাল ১/২ কেজি ( ধুয়ে ৩০মিঃ পানিতে ভিজিয়ে রাখা) 
- এলাচ ও দারচিনি ২ টি করে 
- লবঙ্গ ৩-৪ টি 
- কেওড়া জল ১ চা চামচ 
- ঘি ২ টেবিল চামচ 
- লবণ স্বাদমত 
- চিনি সামান্য 
- তরল দুধ ১/২ কাপ ( জাফরান দিয়ে ভিজানো) 
- আদা বাটা ১/২ চা চামচ 
- লেবুর রস ১ টেবিল চামচ 
জরদা রঙ গুলানো সামান্য 
- পানি পরিমাণ মত

এবার অন্য একটি প্যানে তেল ও ১ টেবিল চামচ ঘি দিয়ে গরম করে একে একে এলাচ , ডালচিনি , লবঙ্গ , শাহি জিরা , আদা বাটা দিয়ে একটু নেরে চাল দিয়ে দিতে হবে। এরপর পরিমাণ মত পানি ও দুধ , লবণ , চিনি , কেওড়া জল, লের রস দিয়ে পোলাও রান্না করে নিতে হবে ।পোলাও রান্না হয়ে গেলে অর্ধেক টা তুলে নিয়ে মাটন ঢেলে দিয়ে বাকি পিয়াজ বেরেস্তা,১ টেবিল চামচ ঘি,কাঁচামরিচ ছিটিয়ে দিয়ে বাকি পোলাও টা ওপর থেকে দিয়ে গুলানো জরদা রঙ চামচ দিয়ে উপরে জায়গায় জায়গায় দিয়ে অল্প আচে দমে দিতে হবে ২০ মিনিটের মত । ২০ মিনিট পর পোলাও টা হাল্কা মিক্স করে নিলে হয়ে যাবে অনেক মজার খাসির নবাবী বিরিয়ানি

কালা জামুন

কালা জামুন
রেসিপি :- 
১ কাপ ছানা ( ১/২ লিটার দুধের মধ্যে ২ চামিচের মত সিরকা অর লেবুর রস দিলেই ছানা তৈরি করা যায় ..
ছানা টা পাতলা কাপরে করে পানি দিয়ে ভাল করে ধুয়ে ছাকতে হবে যাতে পানি না থাকে ) 
১/২ কাপ ময়দা 
২ চামচ বেকিং পাউডার 
৩ চামচ সুজি 
১ চিনটি এলাচ গুরো গিয়ে ভলো করে ময়ামসকরে নিন 
অনেক মিহি করে :)হাতে ঘি নিয়ে ছোট ছোট বল করুন :) 
আমি কাজুবাদাম কুচি চকো বাগাম কুচি দিয়েছি বলের ভিতর দিয়েছি 
এটা যার যার ইচ্ছা
ফ্রাইপেন এ ঘি ঢালুন অথবা তেল ডিপ ফ্রাই করুন ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে লাল হওয়া পর্যন্ত
সিরা তৈরি 
২ কাপ পানি 
১ কাপ চিনি দরকার হলে আরো একচু বেশি গিতে পারেন ইচ্ছে আমি মিষ্টি খোর বেশি চিনি খাই 🙄😬
১ চা তেজপাতা ২ টা সাদা এলাচ দিয়ে সিরা আঠালো হওয়া পর্যন্ত নারুন
ভাজা বলগুলো সিরাতে দিয়ে ৫ মিনিট নারুন 

পরে পরিবেশন বাটিতে ঠান্ডা করে নিন ইচ্ছে হলে ফ্রিজে রেখে করতে পারেন :) 
ব্যাস তৈরি :) কালা জামুন

Treditional South Indian Dessert রাভা কেসারী

রাভা_কেসারী!"

সিম্পল কিছু উপকরণ দিয়েই অসাধারণ একটা ডেজার্ট!!😊
রেসিপিঃ- রাভা কেসারী
উপকরণ-
-সুজি আধা কাপ
-তরল দুধ দেড় কাপ
-ঘি দেড়/দুই টেবিল চামচ
-গুড়া দুধ আড়াই টেবিল চামচ
-চিনি স্বাদমত
-লবণ সামান্য
-ড্রাই পেস্তা, ক্যাশুনাট ভেংগে নেয়া পরিমাণ মত
-ক্যাশুনাট, পেস্তা, কাঠবাদাম টুকরা করা(পছন্দ না করলে না দিলেও হবে)
-কিসমিস পরিমাণ মত
-এলাচি দুইটা, দারচিনি ছোট দুই টুকরা
-জাফরান সামান্য, এটা সামান্য নরমাল উষ্ণ দুধে ভিজিয়ে রাখবে কিছুক্ষন তারপর সব কিছুর সাথে মিক্স করবে।
-জাফরান কালার পরিমাণ মত (এটা অবশ্যই লাগবে)

প্রণালী-
-দুধ জ্বাল দিয়ে ঘন করে নিন, এবার অল্প পানি দিয়ে গুড়া দুধ মিশিয়ে এই ঘন দুধের মধ্যে দিয়ে আধা মিনিট জ্বাল দিয়ে নামিয়ে রাখুন
-সুজি তেল ছাড়া টেলে নিতে হবে কিছুটা ব্রাউন কালার হওয়া পর্যন্ত, তবে পুড়ে ফেলবেননা যেন আবার
-এবার নরমাল পানি দিয়ে ধুয়ে নিন দুই/তিন বার
-এবার পাত্রে সুজি+এলাচি+দারচিনি+চিনি+লবণ+ঘন দুধ+অল্প পানি দিয়ে জাফরান রঙ মিশিয়ে চুলায় বসিয়ে দিন, জাফরান কালার একবারেই বেশি দিবেন না, পছন্দ মত কালার না হলে অল্প অল্প করে মিক্স করে কালার করবেন
-নাড়তে থাকুন, বেশি তাড়াতাড়ি ঘন হয়ে আসলে এতে হাফ কাপের কম পানি দিন এবং নাড়ুন, আঠালো হয়ে আসলে কিসমিস, পেস্তা টুকরা, ক্যাশু টুকরা, কাঠবাদাম টুকরা দিন, দুধে ভিজানো জাফরান দিন
-বেশ আঠালো হয়ে গেলে চুলার জ্বাল একদম অল্প করে এতে ১ টেবিল চামচ ঘি দিয়ে নাড়ুন, আবার বাকি ঘি দিয়ে নাড়ুন
-ঘি দেয়ার পর আধা মিনিট চুলায় রেখেই নামিয়ে ফেলবেন-এবার ছোট ছোট বাটিতে ঘি মেখে তাতে রাভা কেসারী দিয়ে সমান করে দিন, কিছুক্ষন পরে সার্ভিং প্লেটে সাবধানে বাটি থেকে ঢেলে নিন
-উপরে পেস্তা, কাজু, জাফরান দিয়ে সাজিয়ে পরিবেশন করুন মজাদার রাভা কেসারী


★যারা এটাকে বাংগালী সুজির হালুয়া বলবেন তারা কিছুটা ভুল করবেন, মনে রাখবেন আলু ভাজলেই কিন্তু ফ্রেঞ্চফ্রাই হয়ে যাবেনা!!!
ফ্রেঞ্চফ্রাই করার জন্য আলাদা টেকনিক আছে, সেই টেকনিক অনুযায়ী ভাজার পর নরমাল আলু ভাজা হয়ে যায় ফ্রেঞ্চফ্রাই এবং টেস্টও আলাদা হয়।
ঠিক সেভাবেই রাভা কেসারী বাহ্যিক ভাবে সুজির হালুয়া মনে হলেও এটার রান্নার পদ্ধতি+টেস্ট+পরিবেশন সিস্টেম আলাদা।
আশা করি বানিয়ে দেখবেন, ভাল লাগবে 
😊

food around Dhaka মুক্তা বিরিয়ানি

আইটেম : খাসির বিরিয়ানি
স্থান : মুক্তা বিরিয়ানি (খিলগাঁও তিলপাপাড়া)
দাম : ১৩০ টাকা (খাসির মাংস + পোলাউ)
স্বাদ : ৯/১০ ( মুখরোচক.. টাকা জ্বলে যাবে না.. খাওয়ার পর মুখ থেকে গালি বের হবে না.. তৃপ্তিসহকারে খেতে পারবেন)
পরিবেশ : ৭/১০ (ছোট জায়গা)
যারা বিরিয়ানি খেতে পছন্দ করেন তারা একবার হলেও এইখানে গিয়ে খেয়ে আসতে পারেন:)

মুক্তা বিরিয়ানির অন্যান্য আইটেম :
গরুর চাপ বিরিয়ানি - ১৩০/-
খাসির বিরিয়ানি - ১৩০/-
কবুতরের বিরিয়ানি - ১৭০/-
হাঁসের বিরিয়ানি - ১৭০/-
স্পেশাল বাসমতী চালের কাচ্চি - দামটা ভূলে গেছি 

Food around Dhaka food review Chef's Cuisine& Delicious food Express

রিভিউ দেখে খেতে গিয়ে এখন পর্যন্ত কখনই হতাশ হয়নি, আজকেও তার ব্যতিক্রম কিছু ঘটেনি।
সাধারনত কোন কিছু বেশী হাইপ হয়ে গেলে তার মান খারাপ হতে থাকে অথবা 
এক্সপেক্টেশন বেশী কাজ করতে থাকে, তাই দুটুর যে কোনটাই হওয়ার আগে চলে গেলাম শ্যামলী স্কয়ারে বার্গার খেতে। 
Chef's Cuisine-র? না, Delicious food Express-র...
Name: Student Burger
Price: 120৳ (তাদের মোহাম্মদপুরের শাখাটাতে অবশ্য 100৳ রাখে)
Taste: 8.5/10
কেউ একজন বলেছিল, Chef's Cuisine থেকে তাদের বার্গার বেশী মজা। 
সাথের জন Chef's Cuisine-র বার্গার নাওয়াতে দুটুই পাশাপাশি টেস্ট করা ভাগ্যে জুটেছিল। 
Honestly, আমার কাছে দুটুই মজা লাগছে, হয়তো উনিশ বিশ পার্থক্য থাকতে পারে, তবে আকাশ পাতাল কোন পার্থক্য নেই। তবে এক্ষেএে আমি Chef Cuisine-র বার্গারকে 9/10 দিবো।
Service: অনেক rush, তবে 5-10 মিনিটের মাথায় পেয়ে গেছি।

Food around Dhaka Food Review Burger E Kella Fote.

প্রথমেই বলে রাখি যে আমি টাইপিকাল বার্গার হেটার। এখন পর্যন্ত অনেক জায়গাতেই বার্গার খেয়েছি কিন্তু বার্গার নামক বস্তু খানা আমাকে সন্তুষ্ট করতে পারেনাই। হয় স্বাদ ভালনা নয়তো ওভাররেটেড আর দাম বেশী। ইদানিং গ্রুপে এই কেল্লাফতে নামক বার্গারের রিভিউ দেখে ভাবলাম একটু ঢু মেরে আসি। কেন যেন নাম টাই আমাকে চুম্বুকের মতন টান দিয়ে নিয়ে গেছে, নয়তো কেবল মাত্র এই বার্গার খাওয়ার জন্য মিরপুর ১২ থেকে ২ ঘন্টার বাস জার্নি করে যাওয়ার মানুষ আমি না। জিপিএস এর কল্যাণে খুজে পেতে একটুও কষ্ট হয়নাই।
 আজিমপুর বাস স্ট্যান্ড থেকে নেমে সোজা কেল্লার দিকে এগোতে থাকলেই লালবাগ মোড়ের আগেই রাস্তার হাতের ডান দিকে পরবে দোকান টা। ঢুকেই প্রথমে অর্ডার করলাম একটা চিকেন চিজ বার্গার ও চকোলেট কোল্ড কফি। ফফি টা আগেই চলে আসলো। চকোলেট এত বেশী ঘন করে দেয়া যে স্ট্র ঠিক মত নাড়ানো যায়না। মাত্র ৪৫ টাকায় এত মজার কোল্ড কফি সচরাচর পাওয়া মুশকিল। এক টানে ২ গ্লাস সাবার করে দিসি।এরপরে এল চিকেন চিজ বার্গার। মিডিয়াম সাইজের বার্গার। প্রথম দর্শনে খুব আহামরি কিছু মনে হয়নাই। সাধারণ বার্গারের মতই। তবে রুটি টা একদম ফ্রেশ। পেটি টাও যথেষ্ট জুসি আর স্বাদ ও খুব ভালো ছিল। মূল্য ১৩০ টাকা
খেতে খেতে উনাদের সাথে আড্ডা দিচ্ছিলাম। উনারা যথেষ্ট আন্তরিক। 

খাওয়া শেষ করে ছোট নবাব ট্রাই করবো কিনা ভাবতেসি এমন সময় শুনলাম উনারা আজকে নতুন আরেকটা বার্গার চালু করেছে নাম বড় নবাব। আচ্ছা খাবই যখন বড় মিয়ারেই খাই। বললাম আপু আমার জন্য একটা বড় নবাব। এরপরে যাহা শুনিলাম তাহাতে গর্বে তো আর মাটিতে পা পরেনা। আমিই নাকি প্রথম পাবলিক যিনি এই নবাব কে খাইবে :p 
চকচকে ফয়েল পেপারে ঢাকা বিশাল এক খানা বার্গার আনিয়া দিলো আমার সামনে। প্রথম দর্শনেই অবিভুত। ২ ধরনের পেটির সাথে চীজ ও ডিম পোঁচ করে দেয়া। সাথে করেক টুকরা মাশরুম ও ছিল। খাওয়ার সময় হাতের চাপে ডিমের কুসুম আর চীজ দিয়ে পুরো বার্গার মাখামাখি হয়ে স্বাদ আরও বেড়ে গেছে। কপাল ভালো উনারা স্টিলের ফয়েল পেপারে পেচিয়া সার্ভ করে, নয়তো এই নবাব সাহেব আমার নাক মুখ থেকে জামা কাপর পর্যন্ত মাখামাখি করে ফেলত। তবে এটা অনেকের কাছে বিরক্ত লাগতে পারে তাই বড় নবাব খেতে গেলে বলে দিয়েন যাতে কুসুম বেশী নরম না রাখে। তাহলে আর খেতে অসুবিধা হবেনা। বড় নবাবের মূল্য ২২০ টাকা। এটার কারনেই আজকে জার্নি টা সফল।

নেগেটিভ পার্টঃ প্রথমেই দোকানের অভ্যন্তরীণ জায়গা খুব বেশী ছোট। এতই ছোট যে আমার পিছনে বসে কয়েকজন আপুরা যতবার সেলফি নেয়ার ট্রাই করসে ততবারই আমার ভেটকি মারা মুখ টা উনাদের ক্যামেরায় চলে গেছে :p এমন কি উনারা যখন বলসে এই বেটা এমন ই ই ই করতেসে কেন এটাও আমার কানে আসছে :p ।আপুদের কে আমার রিভিউ তেই সরি বলে দিতেসি :'( না চাইতেও ফটো বম্বিং হয়ে গেসে :p
উনারা ৩ বোন কেবল মাত্র শখের বসে যে পুরান ঢাকা এলাকায় বার্গার এর দোকান তেমন নাই,  :D
দেখি কেমন চলে এই ধারনায় শুরু করা। তাই ছোট হওয়া স্বাভাবিক। এমন কি কিছু সরঞ্জাম উপকরণ এর ও কমতি ছিল। যতটুকু পেরেছি উনাদের কে উপদেশ দেয়ার চেষ্টা করেছি। উনারাও তা হাসিমুখেই গ্রহণ করেছে। আমার রিভিউ দেখে কেও খেতে গেলে অনুরোধ করবো উনাদের ত্রুটি গুলো নিয়ে ক্রিটিসাইজ না করে উনাদের কে সহায়তা করার যাতে নিজেদের অসম্পূর্ণতা গুলো কাটিয়ে উঠতে পারে। উনাদের সাথে কথা বললেই বুঝা যায় যে উনারা প্রফেশনাল না। ঢুকেছিলাম কাস্টমার হয়ে কিন্তু যতক্ষণ ছিলাম নিজেকে উনাদের ফ্যামিলির মতন মনে হয়েছে
বিদায় নেয়ার সময় অনুরোধ করে আসছি উনাদের ৩ বোনের একজন কে মিরপুরের বাসিন্দা হইতে :p তাহলে মিরপুর এর বাসিন্দা দের জন্য এই বার্গার আর কফি পেতে কিছুটা সুবিধা হবে :v
আর আরেকটা কথা। নতুন দোকান তাই মানুষ খাওয়ার জন্য হুমড়ি খাবেই আর সাথে গ্রুপে রিভিউ ফ্লাড ও হবে। তাই বলে একে সেই কুখ্যাত জাহান্নামের রাইস বোল আর রিজিকি আস্তা মুরগির সাথে তুলনা কইরেন না কেও।
 
Helped By : www.everythinginherenet.blogspot.com/ | Everything in here | Download This Template
Copyright © 2011. Everything In Here - All Rights Reserved
Template Created by Esstha Published by Everything in here
Proudly powered by Blogger